bdmo-2016-main-banner
Print

১ নম্বরের জন্য স্বর্ন পদক পেলো না আসিফ

বাংলাদেশ দলের সদস্যদের মধ্যে অাসিফ ই এলাহী-২৮ নম্বর (রৌপ্য পদক), আহমেদ জাওয়াদ চৌধুরী - ২১ নম্বর (ব্রোঞ্জ পদক), সাব্বির রহমান-১৯ নম্বর (ব্রোঞ্জ পদক), সাজিদ আকতার তূর্য-১৬ নম্বর (ব্রোঞ্জ পদক), নাঈমুল ইসলাম -১৫ নম্বর (অনারেবল মেনশন) ও সানজিদ আনোয়ার-১৩ নম্বর (অনারেবল মেনশন) পেয়েছে। অভিনন্দন বাংলাদেশ গণিত দল !

ডাচ-বাংলা ব্যাংকের পৃষ্ঠপোষকতায় ও প্রথম আলো র সার্বিক ব্যবস্থাপনায় সারা দেশে গণিত উৎসব আয়োজনের মাধ্যমে ৫৭তম আইএমওর জন্য ছয় জনের বাংলাদেশ গণিত দল নির্বাচিত হয়। নির্বাচন ও এর আনুষাঙ্গিক আয়োজন করেছে বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটি।

Print

৫৭তম আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডের জন্য বাংলাদেশ গণিত দল ঘোষণা

imo-c

আগামী ৬-১৬ জুলাই ২০১৬ হংকংয়ে অনুষ্ঠেয় ৫৭তম আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডের (আইএমও) জন্য ছয় সদস্যের বাংলাদেশ দল ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটি। শিক্ষার্থীরা হলো আসিফ-ই-ইলাহী (সিলেট এমসি কলেজ, সিলেট), মো. সানজিদ আনোয়ার (আনন্দ মোহন কলেজ, ময়মনসিংহ), সাজিদ আখতার তূর্য (সিরাজগঞ্জ সরকারি কলেজ, সিরাজগঞ্জ), মো. সাব্বির রহমান (নটর ডেম কলেজ), এ এম নাঈমুল ইসলাম (বরিশাল জিলা স্কুল) ও আহমেদ জাওয়াদ চৌধুরী (ক্যান্টনমেন্ট ইংলিশ স্কুল, চট্টগ্রাম)। অভিনন্দন বাংলাদেশ গণিত দল।



 


Print

২৮তম এপিএমও তে বাংলাদেশের ১টি রৌপ্য ‌ও ৩টি ব্রোঞ্জ পদক অর্জন

 

এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের আঞ্চলিক গণিত অলিম্পিয়াড এশিয়ান-প্যাসিফিক ম্যাথমেটিক্যাল অলিম্পিয়াডের (এপিএমও) ২৮তম আয়োজনে বাংলাদেশের শিক্ষার্থীরা ১টি রৌপ্য পদক, ৩টি ব্রোঞ্জ পদক ও ৩টি সম্মানজনক স্বীকৃতি (অনারেবল মেনশন) অর্জন করেছে। তারা হলো- সিলেট এমসি কলেজের শিক্ষার্থী আসিফ-ই-এলাহী রৌপ্য পদক ও আনন্দ মোহন কলেজের শিক্ষার্থী সানজিদ আনোয়ার, সিরাজগঞ্জ সরকারি কলেজের শিক্ষার্থী সাজিদ আকতার তূর্য, নটরডেম কলেজের শিক্ষার্থী মো. সাব্বির রহমান পেয়েছে ব্রোঞ্জ পদক এবং নারায়নগঞ্জ হাই স্কুল ও কলেজের জয়দীপ সাহা, বরিশাল জিলা স্কুলের এসএম নাঈমুল ইসলাম ও ক্যান্টনমেন্ট ইংলিশ স্কুলের আহামেদ জাওয়াদ চৌধুরী পেয়েছে সম্মানজনক স্বীকৃতি। এবারের প্রতিযোগিতায় মোট স্বর্ণ পদক পায়েছে ১৩ জন, রৌপ্য পদক পেয়েছে ৪১ জন, বৌঞ্জ পদক পায় ৯২জন শিক্ষার্থী এবং সম্মানজনক স্বীকৃতি পায় ৫৭ জন শিক্ষার্থী।

উল্লেখ্য, গত ৮ মার্চ এপিএমওর সদস্য ৩৬টি দেশে একযোগে অনুষ্ঠিত হয় এ প্রতিযোগিতা। ডাচ-বাংলা ব্যাংক লিমিটেডের পৃষ্ঠপোষকতায় এবং প্রথম আলোর ব্যবস্থাপনায় বাংলাদেশে এপিএমওর আয়োজন করে বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটি। বিভিন্ন দেশে অনুষ্ঠিত হলেও এপিএমওর পরীক্ষা হয় অভিন্ন প্রশ্নে। অলিম্পিয়াডে গণিতের পাঁচটি সমস্যা সমাধানের জন্য চার ঘণ্টা সময় দেওয়া হয়। ফলাফলের বিস্তারিত জানা যাবে http://www.apmo-official.org/ ঠিকানায় এবং শুধু বাংলাদেশের ফলাফল দেখা যাবে http://www.apmo-official.org/reports/ReportBangladesh.html এই ঠিকানায়।

Print

ঢাকায় অনুষ্ঠিত হলো ২৮তম এপিএমও

 


আজ এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের আঞ্চলিক গণিত অলিম্পিয়াড Èএশিয়ান প্যাসিফিক ম্যাথমেটিক্যাল অলিম্পিয়াড (এপিএমও)'-এর ২৮তম আয়োজন অনুষ্ঠিত হয়েছে ঢাকার সরকারি টিচার্স ট্রেনিং কলেজে। এপিএমওর নিয়ম অনুযায়ী অংশগ্রহণকারী প্রতিটি দেশের শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা হয়েছে নিজ নিজ দেশে। এপিএমওর সদস্য ২৬টি দেশে একযোগে অনুষ্ঠিত হয়েছে পৃথিবীর এই সর্ববৃহত্ আঞ্চলিক গণিত অলিম্পিয়াড। তবে ভেৌগোলিক অবস্থান ও সময়ের ব্যবধানের জন্য দেশভেদে কয়েক ঘণ্টার সময় পার্থক্য হয়ে থাকে। সে হিসাবে আমেরিকা অঞ্চলের দেশগুলোর অলিম্পিয়াড হয় ৭ মার্চ বিকেলে এবং বাংলাদেশসহ পশ্চিম প্রশান্ত মহাসাগরীয় এলাকার দেশগুলোর অলিম্পিয়াড হয় ৮ মার্চ সকালে। ঢাকায় অনুষ্ঠিত এপিএমওতে সারা দেশ থেকে আসা প্রাক-বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের ১০০ জন শিক্ষার্থী অংশ নেন।

বিভিন্ন দেশে অনুষ্ঠিত হলেও এপিএমওর পরীক্ষা হয় অভিন্ন প্রশ্নে। মূল প্রশ্ন অলিম্পিয়াডে গণিতের পাঁচটি সমস্যা সমাধানের জন্য চার ঘণ্টা সময় দেওয়া হয়। প্রতিটি প্রশ্নের সর্বোচ্চ মান ছিল ৭। পরে সব শিক্ষার্থীর উত্তরপত্র মূল্যায়ন করে মেধাক্রম নির্ধারণ করা হবে। একই সঙ্গে প্রথম ১০ জনের ফলাফল এবং নমুনা হিসেবে প্রথম, তৃতীয় ও সপ্তম স্থান অধিকারীর উত্তরপত্র কাজাখাস্তান পাঠানো হবে। এবার অলিম্পিয়াডটি সমন্বয় করে কাজাখাস্তান।

দেশের শীর্ষস্থানীয় বেসরকারি ব্যাংক ডাচ&-বাংলা ব্যাংক লিমিটেডের পৃষ্ঠপোষকতায় এবং প্রথম আলোর সার্বিক ব্যবস্থাপনায় বাংলাদেশে এপিএমওর আয়োজন করেছে বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটি।

 

apmoimoimo-logo-2016